এরশাদের শারীরিক অবস্থার উন্নতি : জিএম কাদের

সম্মিলিত সামরিক হাসপাতাল (সিএমএইচ)-এ চিকিৎসাধীন জাতীয় সংসদের বিরোধী দলীয় নেতা ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের শারীরিক অবস্থার উন্নতি হয়েছে, কৃত্রিমভাবে তার শ্বাস-প্রশ্বাস চলেছে। শারীরিক অবস্থা স্বাভাবিক হলে কৃত্রিম সাপোর্ট খুলে ফেলা হবে বলে জানিয়েছেন পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ও এরশাদের ছোটভাই গোলাম মোহাম্মদ (জিএম) কাদের এমপি।

তিনি জানান, চিকিৎসকরা আশাবাদী, অত্যাধুনিক চিকিৎসায় তিনি সুস্থ হয়ে উঠতে পারেন। তবে তিনি এখনই শঙ্কামুক্ত নন। এছাড়াও এরশাদের শারীরিক পরীক্ষা-নিরিক্ষার সকল রিপোর্ট সিঙ্গাপুরে পাঠানো হয়েছিল, বিশেষজ্ঞরা সিঙ্গাপুরে পাঠানোর বিষয়ে নিরুৎসাহিত করেছেন।

শনিবার এইচ এম এরশাদের শারীরিক অবস্থার সর্বশেষ পরিস্থিতি জানাতে পার্টির বনানীর কার্যালয়ে আয়োজিত সাংবাদিক সম্মেলনে সিএমএইচ-এর চিকিৎসকদের বরাত দিয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

এসময় পার্টির মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গা এমপি, প্রেসিডিয়াম সদস্য সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা এমপি, সুনীল শুভরায়, এসএম ফয়সল চিশতী, আজম খান, অ্যাডভোকেট রেজাউল ইসলাম ভূইয়া, এসএম ফখরুজ্জামান জাহাঙ্গীর, আলমগীর সিকদার লোটন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

চিকিৎসকদের বরাত দিয়ে জিএম কাদের আরো বলেন, পল্লীবন্ধুর শারীরিক অবস্থা অপরিবর্তিত আছে। লাইফ সাপোর্টে থাকা অবস্থাতেই শুক্রবার ভোরে তার ডায়ালাইসিস শুরু হয়। গত দুই দিন ধরে এরশাদকে ডায়ালাইসিস (হেমো ডায়া ফিল্টারেশন এবং হেমো পারফিউশন) দেয়া হচ্ছে। এতে এরশাদের শরীর থেকে অপ্রয়োজনীয় পানি বের করা হচ্ছে এবং ইনফেকশন নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে। চিকিৎসকরা আশাবাদী, অত্যাধুনিক চিকিৎসায় তিনি সুস্থ হয়ে উঠতে পারেন। তবে তিনি এখনো শংকামুক্ত নয়।

চিকিৎসকরা আশা করছেন, আগামী দুদিনের মধ্যে অবস্থার কিছুটা উন্নতি হতে পারে। আর দুই-তিন দিনের মধ্যে উনার আরও উন্নতি হলে উনি স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে যেতে পারবেন। চিকিৎসকদের সহায়তায় এরশাদ হাঁটতে পারছেন বলেও জানান জিএম কাদের।

জিএম কাদের বলেন, উন্নত চিকিৎসার জন্য জাতীয় পার্টি এরশাদকে সিঙ্গাপুরে নিয়ে যেতে চাইলেও সিঙ্গাপুরের ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি হাসপাতালের চিকিৎসকরা তাতে সায় দেননি।

বৃহস্পতিবার এরশাদের শারীরিক পরীক্ষার প্রতিবেদন ওই হাসপাতালে পাঠানো হলে রাতে চিকিৎসকরা জানান, লাইফ সাপোর্টে থাকা এরশাদকে সিঙ্গাপুরে নিয়ে যাওয়া হবে ‘বিপজ্জনক।’ তিনি এরশাদের সুস্থতা কামনায় দেশবাসীর দোয়া কামনা করেন।

এদিকে শনিবার দুপুরে বেগম রওশন এরশাদ সিএমএইচ-এ এরশাদকে দেখে দেশবাসীর কাছে সুস্থতা কামনা করে দেয়া চেয়েছেন। এ সময় পার্টির সাবেক মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার সঙ্গে ছিলেন।

মিলাদ মাহফিল
এদিকে এইচ এম এরশাদের সুস্থতা কামনা করে শনিবার বাদ আসর পার্টির যুগ্ম মহাসচিব হাসিবুল ইসলাম জয় তার বনানীর নিজস্ব অফিসে মিলাদ মাহফিল আয়োজন করেন। এ সময় এরশাদের সুস্থতা কামনায় বিশেষ দোয়া পরিচালনা হয়। এ সময় পার্টির যুগ্ম মহাসচিব মনিরুল ইসলাম মিলনসহ কেন্দ্রীয় নেতারা উপস্থিত ছিলেন।