ভয়ঙ্কর রূপ নিতে যাচ্ছে আসাম সঙ্কট

উত্তর-পূর্ব ভারতের রাজ্য আসামের তিন কোটি ২৯ লক্ষ বাসিন্দার মধ্যে প্রায় দুই কোটি ৮৯ লক্ষের নাম উঠে গেছে জাতীয় নাগরিকপঞ্জি বা এনআরসিতে৷ বাকি প্রায় ৪০ লক্ষ মানুষ নাগরিকত্বের বৈধ প্রমাণপত্র দেখিয়ে নিজেদের নাম নথিভুক্ত করার শেষ সুযোগ পাবেন ৩১ আগস্ট পর্যন্ত৷ ভারতের সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে সময়সীমা সম্প্রসারিত হয়ে এই তারিখটিই চূড়ান্ত হয়েছে৷ এর পরেও যারা আসামের ও ভারতের অবৈধ বাসিন্দা হয়ে থেকে যাবেন, তাদের ভবিষ্যৎ কী হবে? কেন্দ্রে এবং রাজ্যে ক্ষমতাসীন ভারতীয় জনতা পার্টি প্রথমে বলেছিল, এদের দেশ থেকে বহিষ্কার করা হবে৷ কিন্তু কোথায়?‌ ভারত সরকারের অভিযোগ ছিল, এই অবৈধ অভিবাসীরা সবাই প্রতিবেশী বাংলাদেশ থেকে এসেছে৷ কিন্তু বাংলাদেশ সরকার জানিয়ে দিয়েছে, আসামে তাদের কোনো নাগরিক নেই৷ ভারতে অবাঞ্ছিত এই লোকেদের বাংলাদেশে আশ্রয় দেয়ারও প্রশ্ন ওঠে না৷

ফলে নাগরিকপঞ্জিতে শেষ পর্যন্ত যাদের নাম উঠবে না, তাদের আপাতত আটক রাখা হবে সরকারি ডিটেনশন ক্যাম্পে৷ আসামের বিভিন্ন জেলায় যে জেলখানা আছে, এতদিন সেগুলোই এই অ-নাগরিকদের বন্দিশিবির হিসেবে ব্যবহৃত হয়েছে৷ পাশাপাশি বিরাট বিরাট এলাকাজুড়ে তৈরি হয়েছে ডিটেনশন ক্যাম্প৷ যতদিন না এদের প্রকৃত নাগরিকত্ব নির্ধারিত হচ্ছে, এখানেই গরু-ছাগলের মতো খোঁয়াড়ে আটক রাখা হবে এদের৷ ক্ষোভে, হতাশায় এই মানুষদের মধ্যে আত্মঘাতী হওয়ার প্রবণতা বাড়ছে৷ মরিয়া অনেকে তা-ও শেষ চেষ্টা করতে চান৷ কিন্তু সেও নেহাত সহজসাধ্য নয়৷ নামনি আসামের বাসিন্দাদের এক দিনের নোটিসে হাজিরা দিতে বলা হচ্ছে ৪০০ কিমি দূরে উজান আসামের কোনো এনআরসি সেবাকেন্দ্রে৷ খেটে খাওয়া গরিব মানুষের পক্ষে সেখানে পৌঁছনোও খরচসাধ্য ব্যাপার৷ তা-ও ওরা যাচ্ছেন৷ কাগজপত্র জমা দিয়ে প্রমাণ করতে চাইছেন যে, ওরা আসলেই এই দেশ এবং রাজ্যের বাসিন্দা৷

কিন্তু অধিকাংশ ক্ষেত্রেই নাকচ হয়ে যাচ্ছে সেসব প্রমাণপত্র৷ আইন-কানুন, নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করেই বাতিল হয়ে যাচ্ছে পুনর্বিবেচনার আবেদন৷ ডয়চে ভেলেকে বললেন গুয়াহাটি হাইকোর্টের সিনিয়র অ্যাডভোকেট হাফিজ চৌধুরি, যিনি এই এনআরসি তালিকা থেকে বাদ পড়া আসামবাসীর আইনি অধিকার নিয়ে লড়ে যাচ্ছেন৷ বাদ পড়ার পর, যিনি নিজেকে ভারতের নাগরিক বলেই দাবি করছেন, তিনি প্রথমে ট্রাইবুনাল, তারপর হাইকোর্ট এবং সামর্থ থাকলে সুপ্রিম কোর্ট পর্যন্ত যেতে পারেন৷ সেই আইনি রাস্তা খোলা আছে৷ কিন্তু যদি সমস্ত সুযোগ পাওয়ার পরও না প্রমাণ করা যায়, তখন কী হবে?
অ্যাডভোকেট‌ হাফিজ চৌধুরি উদ্বিগ্ন সেই আশঙ্কা নিয়েই৷ কারণ, এই মানুষগুলো আসলেই কয়েক পুরুষ ধরে আসামের বাসিন্দা৷ জন্ম-কর্ম সব এখানেই৷ অন্য কোথাও এদের বাড়িঘর নেই৷ তাড়িয়ে দিলে কোথায় যাবেন এরা!‌ এটা আদতে এক মানবিক সমস্যা, যা শিগগিরই এক ভয়ঙ্কর চেহারা নিতে চলেছে বলে তার আশঙ্কা৷

১৯৮০-র দশকে আসামের আঞ্চলিক দলগুলোর সশস্ত্র আন্দোলনের শর্তই ছিল রাজ্য থেকে মূলত অভিবাসী বাঙালি এবং অসমীয়া নয়, এমন সমস্ত সম্প্রদায়ের মানুষকে তাড়াতে হবে৷ সেই ‘‌বাঙালি খেদা’‌ আন্দোলনের শেষ হয়েছিল তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধীর সঙ্গে আসাম গণ পরিষদের চুক্তিতে৷ কিন্তু মূল দাবির হেরফের হয়নি৷ বরং ওই চুক্তির আবশ্যিক শর্তই ছিল অ-আসামীয়দের চিহ্নিতকরণ এবং বহিষ্কার৷ যতদিন কেন্দ্রে কংগ্রেস ক্ষমতায় ছিল, সেই প্রক্রিয়া খাতায়-কলমে চালু থাকলেও চলেছে ঢিমেতালে৷ কিন্তু প্রথমে কেন্দ্রে এবং তারপর আসামেও বিজেপি ক্ষমতা দখল করার পর সে-কাজে দ্রুতি আসে৷ ৩০ জুলাই ২০১৮-তে প্রকাশিত, আসামের জাতীয় নাগরিকপঞ্জির চূড়ান্ত খসড়ায় বাদ পড়ে প্রায় ৪০ লক্ষ নাম, যে নাম ভোটার তালিকায় আছে৷ কিন্তু নাগরিকত্বের প্রমাণপত্র দাখিল করতে না পারায় এখন ‘‌ডাউটফুল ভোটার’‌‌৷ এদেরই ভবিষ্যৎ নির্ধারিত হবে ৩১ আগস্টের পর৷
সূত্র : ডয়চে ভেলে